খুব কঠিন কিছুনা, তিনদিন লাগে; স্বাস্থ্য অধিদপ্তর চাইলে N95 আনতে সহযোগিতাঃ মেয়র

এখন এ ব্যাপারে আমি তো কিছু বলতে পারবো না যে উনারা কোনভাবে কোন প্রক্রিয়ায় চেষ্টা করছেন। উনারা যদি আমার সহযোগিতা চায়, যেহেতু দেশে ক্রাইসিস চলছে, আমি যতটুকু চিনি বা জানি আমি সাহায্য করতে পারবো। মূল কথা, মানুষকে রক্ষায় যা যা করা দরকার, আমরা সবাই এক হয়ে কাজ করলে সেগুলো দ্রুত করতে পারবো। উনারা কার মাধ্যমে এগুলো আনতে চেষ্টা করছেন জানি না। যেহেতু সরকারের পক্ষ থেকে চেষ্টা করা হচ্ছে, অবশ্যই বড় কারো মাধ্যমে চেষ্টা করা হচ্ছে। অবশ্যই পাওয়া যাবে। এগুলো পাওয়া বা আনা তো খুব কঠিন কিছু না। সঠিক প্রক্রিয়ায় যোগাযোগ করলে অবশ্যই পাওয়া যাবে।”

“সময়ের ক্ষেত্রে দেখা গেছে, আমি যেদিন বলছি, এর দুই থেকে তিন দিনে মধ্যেই তারা পাঠাচ্ছেন। অর্থাৎ, দুই থেকে তিন দিনের মধ্যেই এগুলো নিয়ে আসা যাচ্ছে।”

“অনেকে বলছেন এগুলো অনুমোদন ছাড়াই আনা হচ্ছে। এখন কথা হচ্ছে আমি যদি মেয়র হিসেবে অনুমোদন নিয়ে এগুলো আনতে যাই, তাহলে ছয় মাসের মতো সময় লাগবে। এখন এর মধ্যে যদি এই রোগে আমার এলাকার মানুষ মারা যায়, তাহলে এগুলো এনে কী করবো? আইন তো হচ্ছে মানুষের জন্য। মানুষের প্রয়োজনে আমরা এ জিনিসটা করি। এখন কেউ যদি অন্য উদ্দেশ্য চিন্তা করে, তাহলে তো আমার জন্য বলা কঠিন। সিটি করপোরেশন বা সরকারের নয়, নিজ টাকায় মানবিক কারণে চীন থেকে এগুলো আমি সংগ্রহ করে এনেছি। আমাদের হাসপাতাল বা আমাদের আশপাশের হাসপাতালে এগুলো ব্যবহার করা হচ্ছে।”

ডেইলি স্টার পত্রিকাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে উপরের কথাগুলো বলেছেন গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম। তিনি পারলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কেন পারছে না, আর এসব মালামাল আনার সময় এবং অনুমতি প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি এই মন্তব্য করেন। উনি সাক্ষাৎকারে আরো জানান,

“সবকিছুই চীন থেকে এনেছি। ওখানকার কয়েকটি শহরের মেয়র ও গভর্নর আছে পরিচিত, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করি। এ ছাড়া, আমার বন্ধুরা রয়েছেন সেখানে, তাদের মাধ্যমে আমি এগুলো এনেছি। এ ছাড়া, সিঙ্গাপুর থেকেও কিছু থার্মোমিটার এনেছি। যেগুলো স্ক্যানারের মতো। সেগুলো বাসা-অফিসের সামনে রাখলে, সেখান দিয়ে কেউ গেলে স্ক্যান করে শরীরের তাপমাত্রা অটোমেটিক উঠে যাবে।”

চীনের কুনমিং, বেইজিং, গুয়াংজো, সাংহাইসহ কয়েকটি শহরে বন্ধুরা আছে। তাদের বললে তারা সংগ্রহ করে এগুলো পাঠায়। তারা মূলত, বিভিন্ন জায়গা থেকে এগুলো সংগ্রহ করে দেয়। এ ছাড়া, চীনের কুনমিং শহরের মেয়রও অনেক সহায়তা করছেন।”

মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম এসব মালামাল আগে কার্গো প্লেন ভাড়া করে এনেছিলেন আর গতকাল যাত্রীবাহী প্লেন ভাড়া দিয়ে এনেছেন। এ পর্যন্ত চার ধাপে মালামাল এনেছেন। এখন পর্যন্ত ৮-১০ কোটি টাকা দিয়েছেন বন্ধুদের। অনেক ক্ষেত্রে তার বন্ধুরাই খরচ বহন করেছে আবার কিছু কিছু জায়গায় বাকি আছে।

দেশের চলমান করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে নারায়ণগঞ্জের ডাক্তারের ভিডিও কনফারেন্সে মাস্ক নিয়ে আলোচনা হয়েছিল যেখানে ডাক্তার বলেছিলেন তারা প্রয়োজনীয় এন-৯৫ মাস্ক পাননি। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেছিলেন, এন-৯৫ মাস্ক আমেরিকা তৈরি করে এবং তারা রপ্তানি বন্ধ করে দেওয়ায় পাওয়া যাচ্ছে না।

তারপর থেকেই আলোচনা হচ্ছে, এন-৯৫ একটি স্ট্যান্ডার্ড। আমেরিকা ছাড়াও এই মানের মাস্ক পৃথিবীর আরও বেশ কয়েকটি দেশ তৈরি করে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ডাক্তারদের এই মাস্ক না দিয়ে সিলযুক্ত ভুয়া মাস্ক সরবরাহ করছে বলে খবর বেরিয়েছে। এর মধ্যেই গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলম চীন থেকে এন-৯৫ মাস্ক নিয়ে এসে নতুন আলোচনার সৃষ্টি করলেন।

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related Articles