স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ছেলের ব্যাপারে তদন্ত করবে দুদক

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ড. জাহিদ মালেকের ছেলে রাহাত মালেক শুভ্রের ব্যাপারে দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক) তদন্ত শুরু করেছে। সাম্প্রতিককালে এন-৯৫ মাস্ক, ভেন্টিলেটরসহ করোনা মোকাবেলার জন্য বিভিন্ন সরঞ্জাম কেনাকাটা নিয়ে কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পুত্র রাহাত মালেক শুভ্রের নাম। এই প্রেক্ষাপটে বিভিন্ন গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তাকে নিয়ে তীব্র সমালোচনা হচ্ছে।

জানা গেছে যে, এন-৯৫ মাস্ক নিয়ে যে কেলেঙ্কারি হয়েছে, জিএমআই নামে যে কোম্পানিটি এই মাস্ক সরবরাহ করেছিল, সেই কোম্পানি বিনা টেন্ডারে ভুয়া এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহ করেছিল। এই কোম্পানিটির সঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পুত্রের যোগসাজশের খবর গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে।

অবশ্য দুর্নীতি দমন কমিশনের একজন কর্মকর্তা বলেছেন যে, সাম্প্রতিক করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে কেনাকাটা নয়, বরং আগে থেকেই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ছেলেকে নিয়ে তারা তদন্ত করছিলেন। এই তদন্তের অংশ হিসেবেই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাবেক এপিএস ড. আরিফুর রহমান শেখকে দুর্নীতি দমন কমিশনে তলব করা হয়েছিল গত জানুয়ারি মাসের শেষ দিকে। সে সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পুত্রের ব্যাপারে তাকে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে।

টানা তৃতীয় মেয়াদে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর স্বাস্থ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান ড. জাহিদ মালেক। এরপর থেকেই তার পুত্র স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কেনাকাটার বিষয়ে হস্তক্ষেপ শুরু করেন বলে দুর্নীতি দমন কমিশনের কাছে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে বলে দুদকের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। সেই প্রেক্ষিতেই তারা অনুসন্ধান শুরু করে। অবশ্য যখন দুদক স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সাবেক এপিএসকে জিজ্ঞাসাবাদ করা শুরু করেন, তখন মন্ত্রী তার তাকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেন। এরপর থেকেই দুদক নিজস্ব উদ্যোগে তদন্ত করছে। খুব শিগগিরই তারা চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছাবেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানিয়েছে।

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related Articles