নাম দিচ্ছে ঠিকমতো, জিনিসগুলো বোধহয় ঠিকঠাক যায়নিঃ স্বাস্থ্য বিভাগকে প্রধানমন্ত্রী

“আমি আমাদের মন্ত্রীর (স্বাস্থ্যমন্ত্রী) কাছে কিছু ছবি পাঠিয়েছি। যারা সাপ্লাই দেয়, তারা সঠিকভাবে সবকিছু দিচ্ছে কিনা? মহানগর হাসপাতালে কিছু জিনিস গিয়েছে। নাম দিচ্ছে ভালো, কিন্তু সঠিকভাবে ঠিক জিনিসগুলো যায়নি। এটা আপনাদের দেখা উচিত। আপনারা দিয়ে দিচ্ছেন, বলে দিচ্ছেন। কিন্তু যারা সাপ্লায়ার তারা ঠিকভাবে দিচ্ছে কিনা, কিংবা সঠিক জিনিসটা কিনছে কিনা, এটা দেখা দরকার, এটা দেখবেন। এটা নিয়ে আমি বেশি কিছু বলতে চাই না। আমি মন্ত্রীর কাছে পাঠিয়ে দিয়েছি ছবিটা, এটা যাচাই করে দেখার জন্য।”

এন-৯৫ মাস্কের বক্সে কোন মাস্ক সরবরাহ করা হচ্ছে সে বিষয়ে নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দিয়ে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া লাইভে সবার সামনে কথা বলার ব্যাপারটা উল্লেখ করেন তিনি। সম্পূর্ণ কথা জনসম্মুখে না বললেও তার কাছে এ ব্যাপারে তথ্য ও অভিযোগ থাকার কথা জানিয়ে দেন তিনি। সোমবার (২০ এপ্রিল) ভিডিও কনফারেন্সে ঢাকা বিভাগের চারটি ও ময়মনসিংহ বিভাগের সব জেলার সঙ্গে মতবিনিময়ের শেষ পর্যায়ে তিনি স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “বক্সে লেখা আছে এন-৯৫, কিন্তু সবসময় জিনিসটা সঠিক যাচ্ছে না। এটা তো ঠিক নয়। এটার দিকে নজর দিতে হবে। বক্সের ভেতরের জিনিসগুলো ঠিক আছে কিনা, তা দেখেশুনে গ্রহণ করতে হবে।”

পরে স্বাস্থ্য সেবা সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের পাশে বসা কেন্দ্রীয় ঔষধাগারের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শহীদুল্লাহ বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের কেন্দ্রীয় ঔষধাগারসহ একটা কমিটি করা আছে। যারা এই সরবরাহ ও তার কারিগরি দিক পরীক্ষা করবে। ইতোমধ্যে আমরা প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার পিপিই নিম্নমানের হওয়ায় নষ্ট করেছি। আমরা সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। হয়তো জরুরি প্রয়োজন মেটাতে আমাদের ভুল হয়ে থাকতে পারে। কিন্তু এখন আমারা চাচ্ছি, আমাদের এই ভুলগুলো যাতে না হয়। সঠিকভাবে বিতরণটা করতে পারি, সেই উদ্যোগ আমরা নিয়েছি।

পরে প্রধানমন্ত্রী ব্যক্তিগত মোবাইলের দিকে তাকিয়ে বলেন, “এন-৯৫ লেখা বক্স, কিন্তু ভেতরে যে জিনিস, সেটা সঠিক থাকে কিনা, এটা একটু আপনাদের দেখা দরকার, একটু নজর দেন। যেহেতু এখন লাইভে আছেন, আমরা কথা বলছি। লেখা আছে এন-৯৫, কিন্তু সবসময় জিনিসটা সঠিক যাচ্ছে না। এর সাপ্লায়ার কে? মহানগর হাসপাতালে (বাবুবাজার) এটা গেছে, এটাতো কোভিডের জন্য ডেডিকেটেড। যদি এটা কিছু কিছু জায়গায় হয়, তাহলে তো তা ঠিক না। বক্স তো ঠিক আছে, কিন্তু বক্সের ভেতরের জিনিসগুলো ঠিক আছে কিনা সেটার জন্য নজরদারিটা বাড়ানোর প্রয়োজন, বা যিনি এটা গ্রহণ করবেন, তিনি যেন দেখেশুনে তা গ্রহণ করেন। খালি আমি এইটুকু বলতে চাই।”

সম্প্রতি চিকিৎসা সংশ্লিষ্টদের জন্য সরকারিভাবে সরবরাহকৃত পিপিই নিয়ে নানা ধরনের অভিযোগ ওঠে। চিকিৎসক ও নার্সরা নিম্নমানের পিপিই সরবরাহের অভিযোগ করেন। বিশেষ করে এন-৯৫ সিলযুক্ত ভুয়া নিম্নমানের মাস্ক সরবরাহের অভিযোগ করেন তারা। শতাধিক চিকিৎসক আক্রান্তের কারন হিসেবে নকল মাস্ককে দায়ী করে অনিয়মের অভিযোগ এনে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদও প্রকাশ হয়। এরপর স্বাস্থ্য অধিদফতরের আওতাধীন কেন্দ্রীয় ঔষধাগার (সিএমএসডি) কর্তৃপক্ষ একটি গণবিজ্ঞপ্তি দেয়। ওই বিজ্ঞপ্তিতে মাস্ক ও পিপিই নিয়ে অপপ্রচার বন্ধ করা না হলে ‘ডিজিটাল তথ্য আইন’ অনুযায়ী মামলা করারও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়। এরই প্রেক্ষিতে আজ ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ব্যাপক আলোড়ন তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে।

Facebook Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Related Articles