‘ক্যাপ্টেন কুল সব রাগ আমার ওপরেই দেখায়’

লকডাউনের মাঝে ক্রিকেটাররা যখন লাইভ চ্যটিংয়ে ব্যস্ত, তাদের গিন্নিরা তখন বসে থাকবেন কেন? ভারতের সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির স্ত্রী সাক্ষী সিং রাওয়াতও এসেছেন লাইভ চ্যাটিংয়ে। ধোনির আইপিএল দল চেন্নাই সুপার কিংসের ইনস্টাগ্রাম লাইভে এসে ব্যক্তিগত জীবনের অনেক গল্পই করেছেন সাক্ষী। মাঠ ও মাঠের বাইরে ‘ক্যাপ্টেন কুল’ হিসেবে পরিচিত ধোনি রেগে যান কিনা- এটা ছিল অন্যতম একটা গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন।

সাক্ষী বলেন, ‘ধোনি মাঠে এতটাই শান্ত যে, লোকে মনে করে ওর মধ্যে আবেগের ছিটেফোঁটা নেই। কিন্তু সেটা ঠিক না। ধোনি ক্রিকেট নিয়ে খুবই আবেগী। খেলাটাকে খুব ভালোবাসে। তবে ওর মাথা কিন্তু সত্যিই খুব ঠাণ্ডা। আমিই একমাত্র যে ওর মাথাটা গরম করে দিতে পারি। আর কেউ ওর সঙ্গে লড়াই বাঁধাতে পারবে না, আমি ছাড়া। আমার উপরেই সে যাবতীয় রাগ দেখায়, কারণ আমি যে ওর সবচেয়ে কাছের। বিয়ের ১০ বছর পার হলে একে অন্যকে খুব ভালোভাবে জানা হয়ে যায়। তাই বলছি, ওর সঙ্গে আমি ছাড়া আর কেউ ঝগড়া লাগাতে পারবে না।’

ধোনির বায়োগ্রাফি মুভিটা দেখে সবাই ইতোমধ্যে জেনে গেছেন যে, কলকাতার সেই হোটেলে দেখা হওয়ার আগ পর্যন্ত সাক্ষী ধোনিকে চিনতেন না। যদিও ধোনি তখন বড় তারকা। এ বিষয়ে সাক্ষী বলেন, ‘আমি বোর্ডিং স্কুলে পড়তাম। সেখান থেকে কলেজে। ফলে ক্রিকেট সেভাবে দেখতাম না। তবে অবশ্যই শচীন টেন্ডুলকার, সৌরভ গাঙ্গুলীর নাম জানতাম। আর শুনেছিলাম, কে একটা লম্বা চুলের পাহাড়ি ছেলে দলে আছে। আমার মা ওর খুব ভক্ত ছিল। মায়ের কাছেই ওই পাহাড়ি ছেলের কথা শুনেছিলাম। পরে যখন আলাপ হয়, দেখলাম কোথায় লম্বা চুল? পরিচয়ের পর বাসায় এসে মাকে বলেছিলাম সেই কথা।’

Facebook Comments

Related Articles