দেশব্যাপী “কভিড ভলান্টিয়ার্স বাংলাদেশ” এর ভার্চুয়াল মেডিকেল ক্যাম্প

কোভিড-১৯ বা নোভেল করোনা ভাইরাস সারা পৃথিবীতে এক আতঙ্কের নাম।বাংলাদেশ ও তার বাইরে নয়। যার ভয়াল থাবায় আজ সারা পৃথিবী বিপর্যস্ত। এরই মধ্যে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও দিনের পর দিন সেই আক্রান্তের সংখ্যাটা বেড়েই চলছে।এই বিশাল সংখ্যক রোগীর সেবা দিতে ডাক্তার এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের হিমশিম খেতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। অপর দিকে, লকডাউন এর সময়ে সাধারণ রোগীরাও চিকিৎসা সেবা নেওয়ার জন্য হসপিটালে যেতে পারছে না এবং তারা তাদের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবাটি নিতে পারছে না। এর সাথে রয়েছে এক অজানা ভয়। দেশের ঠিক এমন পরিস্থিতিতে সরকারি ও বেসরকারি মেডিকেলের শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে বিশেষজ্ঞদের Backup Force হিসাবে “Covid Volunteers Bangladesh” নামের একটি সংগঠন বাংলাদেশের সাধারণ জনগণের মধ্যে ভার্চুয়াল মেডিকেল ক্যাম্প করে চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেওয়া পরিকল্পনা করেছে যাতে করে সাধারণ মানুষ যেমন সেবা পেতে পারবে সহজেই তেমনি হসপিটালে রোগীর চাপটাও কমে আসবে। কভিড ভলান্টিয়ার্স বাংলাদেশ এর আয়োজনে এবং FDSR এর সহযোগিতায় দেশের সবচেয়ে বড় ভার্চুয়াল মেডিকেল ক্যাম্প অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এই পরিকল্পনার ধারাবাহিকতায় “Covid Volunteers Bangladesh” এর ভলেন্টিয়ার প্রতিনিধি কুমিল্লা সেন্ট্রাল মেডিকেল কলেজের ৫ম বর্ষের শিক্ষার্থী তানভীর আহমেদ এর হোস্টিং এ পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড এবং কুমিল্লা ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজের ৫ম বর্ষের ছাত্র আলামিন খান এর হোস্টিং এ কালির বাজার ইউনিয়ন এ ভার্চুয়াল মেডিকেল ক্যাম্পটির আয়োজন করা হয়। শুধু কুমিল্লার পদুয়ার বাজার বা কালির বাজার ইউনিয়ন এ না ঐ দিন ঠিক একই সময়ে সারা দেশের প্রায় ৫০টি জায়গায় এই ভার্চুয়াল মেডিকেল ক্যাম্প এর মাধ্যমে ১০০০+ রোগীর মাঝে এই চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেওয়ার আয়োজন করা হয়েছে।যেখানে অনলাইনে সারাদেশের সম্মানিত প্রায় ১০০ জন ডাক্তার অংশগ্রহণ করে। এবং ভবিষ্যৎতে এই রকম আয়েজনে সাধারণ মানুষের পাশে থাকবে বলে ডাক্তাররা আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

“কোভিড ভলেন্টিয়ার্স বাংলাদেশ” এর প্রতিষ্ঠাতা তৌফিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক তানজিম আহম্মেদ এ প্রসঙ্গে জানান, “স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ থেকে আমরা সংগঠনটি গড়ে তুলি- যেখানে প্রায় ১২০০ জন স্বেচ্ছাসেবী আছেন।আমরা আমাদের সংগঠনের মাধ্যমে দেশের এই করোনাকালীন দুর্যোগে মানুষের পাশে থেকে তাদের সাহায্য করার চেষ্টা করছি- যেখানে ব্লাড ব্যাংকও আছে।”

তিনি আরো বলেন, “আপনারা জেনে আনন্দিত হবেন যে চট্টগ্রাম, মধুপুর, টাঙ্গাইল, রাজশাহী, ঢাকা ও ঢাকার বিভিন্ন পয়েন্টসহ একসঙ্গে দেশের মোট ৫০টি স্পটে প্রায় ১০০০ জন মানুষ এ সেবা পাচ্ছে। আর মনে হয়, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এটাই ছিলো দেশের সবচেয়ে বড় ভার্চুয়াল ক্যাম্প, যা আমাদের অনেক বড় অর্জন।”

Facebook Comments

Related Articles