করোনার প্রথম জীবন রক্ষাকারী ওষুধ পাওয়া গেল

Dexamethasone করোনাভাইরাসের প্রথম জীবন রক্ষাকারী ওষুধ। এটা অনেক সাধারণ এবং সস্তা ওষুধ। যুক্তরাজ্যের গবেষকরা জানিয়েছেন কম ডোসের স্টরয়েড প্রয়োগ বহু জীবনকে বাচিয়ে দিতে পারে। মৃত্যুর মিছিলে বাধা হয়ে দাড়াতে পারে এ ওষুধ। খবর বিবিসি৷

ভেন্টিলেটরে থাকা রোগীর মৃত্যুঝুঁকি এক তৃতীয়াংশ কমিয়ে দিতে পারে এ ওষুধ। বিশ্বের সবচেয়ে বড় ট্রায়ালের মধ্য দিয়ে এরকম তথ্যই উঠে এসেছে।

গবেষকরা ধারণা করছেন, এ ওষুধ প্রয়োগ করা গেলে যুক্তরাজ্যের অন্তত পাঁচ হাজার লোক বেঁচে যেতে পারত। আর যেহেতু এটা অনেক সস্তা তাই গরীব অনুন্নত দেশগুলোতেও মৃত্যু মিছিল কমে যেত।

করোনার ২০ জনের মধ্যে ১৯ জন রোগী এমনিতেই ভালো হয়ে যায়। বাকি রোগীদের মারাত্মক উপসর্গ থাকে। মারাত্মক কোভিড-১৯ এর উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া লোকজনকে হাল্কা ডোজের স্টেরয়েড ডেক্সামেথাসোন দিয়ে দেখা যাচ্ছে, প্রায় এক তৃতীয়াংশের মধ্যে মৃত্যুহার কমেছে। ব্রিটেনের নেতৃত্বাধীন এই ক্লিনিকাল ট্রায়ালের সঙ্গে যুক্ত বিজ্ঞানীদের দাবি, এটা বড় ধরনের ব্রেক থ্রু! এই ট্রায়ালের নাম দেওয়া হয়েছে রিকভারি। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, ট্রায়ালের ফলাফলে এই সিদ্ধান্তে আসা যায় যে, এই ওষুধটিকে অবিলম্বে করোনাভাইরাস অতিমারীর লক্ষণ নিয়ে হাসপাতালে চিকিত্সাধীন লোকজনকে দেওয়া উচিত।

বিজ্ঞানী দলের সহকারী নেতা অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসক মার্টিন ল্যান্ডরে বলেছেন, এই ফলে দেখা যাচ্ছে., যদি কোভিড-১৯ সংক্রামিত রোগীরা ভেন্টিলেটরে থাকেন বা অক্সিজেন সাপোর্টে থাকেন, তবে তাঁদের ডেক্সামেথাসোন দেওয়া হলে জীবন বাঁচবে, এবং উল্লেখ করার মতো কম খরচে এটা হবে।

তাঁর সহকারী পিটার হর্বি বলেছেন, জেনেরিক স্টেরয়েড ডেক্সামেথাসোন অন্যান্য অসুখের ক্ষেত্রে প্রদাহ কমাতে দেওয়া হয়। এটাই এখনও পর্যন্ত একমাত্র ওষুধ যা মৃত্যু উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় কমানোর ক্ষমতা দেখিয়েছে। এটা বিরাট মোড় এনে দিল।

Facebook Comments

Related Articles