এই ৬ জন বলিউডের যে কারো ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দিতে পারেন!

সুশান্তের মৃত্যুর পর বলিউডে যে শব্দটা সবচেয়ে বেশি উচ্চারিত হচ্ছে তা হলো নেপোটিজম। কঙ্গনা বলছেন, সুশান্ত পুরনো সাক্ষাৎকারেও বারবার স্বজনপ্রীতির কথা বলেছে। এসবের সঙ্গে ওর মৃত্যুর কোনো যোগ নেই?’

সুশান্তর মৃত্যুর জন্য সরাসরি প্রভাবশালীদের দায়ী করেন ভারতের জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত এই অভিনেত্রী। ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা এক ভিডিও বার্তায়  বলেন, ‘এত সাফল্য পেলেও কখনো সুশান্তকে প্রথম সারির অভিনেতা মনে করা হতো না, কোনো স্বীকৃতিই পায়নি ছেলেটা। অথচ ‘গলি বয়’-এর মতো বাজে ছবি পুরস্কারে ভেসে যায়। এটা আত্মহত্যা নয়, পরিষ্কার খুন। আপনাদের ছবিতে সুযোগ চাই না, তবে আমাদের ছবি হিট হলে জোর করে ফ্লপ তকমা দেবেন না।’

এদিকে ৬ জন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান বলিউডে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে বলে অভিযোগ করেছেন অভিনেতা, প্রযোজক ও লেখক কমল আর খান। তিনি বলেন বলেন, এই প্রতিষ্ঠানের ৬ জন বলিউড নিয়ন্ত্রণ করেন বলে তিনি সরাসরি তীর ছোঁড়েন, যার মধ্যে সালমান খানেরও নাম রয়েছে। অবশ্য অভিনব কাশ্যপও একই অভিযোগ ছুঁড়েছেন সালমান খানের পরিবারের দিকে।

সুশান্ত সিংহ রাজপুতের অকালপ্রয়াণ ও তার নেপথ্যের অবসাদের চোরাস্রোত বলিউড ইন্ডাস্ট্রিকে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে কতকগুলি বিতর্ক ও আত্মবিশ্লেষণের সামনে। ৩৪ বছরের এই তরুণ তুর্কির উত্থানের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ানোর পিছনে বলিউডের নামী ক্যা্ম্পের ষড়যন্ত্র ও চেনা রাজনীতির প্রসঙ্গে সরব অনেকেই।

কমল আর খান-এর মতে যে ৬ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান বলিউড নিয়ন্ত্রণ করেন তারা হলেন-

১.করণ জোহর (ধার্মা প্রোডাকশন)
২. আদিত্য চোপড়া (রানি মুখার্জির স্বামী, শরাজ ফিল্মস)
৩.ভুষণ (টি সিরিজ)
৪ একতা কাপুর (বালাজি)
৫ সাজিদ (নাদিয়াদওয়ালা)
৬.সালমান খান (সালমান খান ফিল্মস)

কমল আর খান বলেন, ‘এই ৬ জন চাইলে বলিউডে যে কারো ক্যারিয়ার ধ্বংস করে দিতে পারেন।’ অনুরাগ কাশ্যপও স্পষ্ট করেছেন, এ ব্যাপারে তিনি জড়াতে চান না। সুশান্তের মৃত্যুকে হাতিয়ার করে বলিউডের অন্যতম শক্তিশালী ক্যাম্পের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তুলেছেন অভিনব, তাতে সোশ্যাল মিডিয়া ও ইন্ডাস্ট্রিআ দ্বিধাবিভক্ত।

Facebook Comments

Related Articles