বিশ্বকাপ বিক্রির ‘বোমা’ ভালোই ফেটেছে শ্রীলঙ্কায়

বোমাটা আজ ফাটেনি। কিন্তু এখনো আওয়াজ আসছে!

কুমার সাঙ্গাকারা-মাহেলা জয়াবর্ধনেরা সেই বোমায় ক্ষত-বিক্ষত। প্রশ্ন উঠেছে দেশের জার্সির প্রতি তাদের দায়িত্ববোধ নিয়ে। সাবেক ক্রীড়া মন্ত্রী আলুতগামাগে সরাসরি বলেছেন, ২০১১ বিশ্বকাপ ‘বিক্রি করেছে’ শ্রীলঙ্কা। এমন অভিযোগ তুললে আর যাই হোক খেলোয়াড়দের মাথা ঠিক থাকার কথা না। এবার ‘৯৬ বিশ্বকাপ কিংবদন্তি অরবিন্দ ডি সিলভার দাবি, ২০১১ বিশ্বকাপ ফাইনাল তদন্ত করা হোক। নিজের বোর্ড, আইসিসি ও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) কাছে এই অনুরোধ করেছেন তিনি।
সাঙ্গাকারার নেতৃত্বে ভারতের কাছে ৬ উইকেটে হেরেছিল শ্রীলঙ্কা। দুই বছর আগে শ্রীলঙ্কার বিশ্বকাপজয়ী সাবেক অধিনায়ক অর্জুনা রানাতুঙ্গা ঠিক একই অভিযোগ তুলেছিলেন। ২০১১ বিশ্বকাপ ফল পাতানো মনে হয়েছিল তাঁর কাছে। এবার তা নতুন করে ওঠায় ভালোমতোই চেপে ধরেছেন জয়াবর্ধনে ও সাঙ্গাকারা।

২০১১ বিশ্বকাপে শ্রীলঙ্কা জাতীয় নির্বাচক দলের প্রধান ছিলেন ডি সিলভা। খুব স্বাভাবিকভাবে আলুতগামাগের কথাটা তাঁর গায়েও লাগার কথা। সংবাদমাধ্যমকে ডি সিলভা বলেছেন, ‘আমি আর চুপ থাকব না। এটা ভয়ঙ্কর অভিযোগ। তার প্রমাণ দেওয়া উচিত। কাছে তথ্য থাকলে ৯ বছর কেন চুপ করে ছিল? এভাবে মিথ্যা বলে পার পেতে দেওয়া উচিত না। এটা তদন্তের জন্য আইসিসি, এসএলসি ও বিসিসিআইয়ের কাছে আমি অনুরোধ করছি।’

সাঙ্গা ও জয়াবর্ধনের মতে, শ্রীলঙ্কার ইতিহাসে সেরা এ ব্যাটসম্যান বিসিসিআইকে বলেন, ‘শচীন টেন্ডুলকার বিশ্বকাপ জয় সারা জীবন মনে রাখবে। আমি মনে করি শচীন এবং লাখো ক্রিকেটপ্রেমীর কথা ভেবে ভারতীয় সরকার ও বোর্ডের এটি তদন্ত করা উচিত যে তারা পাতানো বিশ্বকাপ জিতেছে কি না।’

আলুতগামাগে কাল বলেন, তিনি খেলোয়াড়দের উদ্দেশে এ অভিযোগ করেননি। কিছু অফিশিয়াল এর সঙ্গে জড়িত। জয়াবর্ধনে পাল্টা প্রশ্ন করেন, ‘খেলোয়াড়েরা জড়িত না থাকলে কীভাবে ম্যাচ পাতানো সম্ভব?’

এদিকে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডের (এসএলসি) সাবেক প্রধান থিলাঙ্গা সুমাথিপালা প্রশ্ন তুলেছেন খেলোয়াড়দের আচরণ নিয়ে, ‘ম্যাচ পাতানোর সঙ্গে খেলোয়াড়েরা জড়িত না থাকলে তারা এটা নিয়ে চিন্তিত কেন? সবার ধৈর্য ধরা উচিত। জড়িত না থাকলে চুপ থাকাই ভালো।’

জয়াবর্ধনে ছেড়ে কথা বলেননি। সাবেক বোর্ড প্রধানকে খোঁচা মেরে তাঁর টুইট, ‘দুঃখিত, এরপর থেকে কোনো প্রতিক্রিয়া জানানোর আগে তার সঙ্গে কথা বলে নেব। কারণ তার এ ব্যাপারে অগাধ জ্ঞান।’

Facebook Comments

Related Articles