কিভাবে বুঝবেন আপনি আসলেই ডিপ্রেশনে আছেন? জেনে নিন

বুধবার, ২৪ জুন,২০২০

“ডিপ্রেশন” শব্দটি বর্তমানে বহুল পরিচিত। কোয়ারেন্টাইনে সবার মানসিক অবস্থার উপর প্রভাব পড়েছে,ঘটেছে স্বাভাবিক জীবনযাত্রায় ব্যাঘাত। কারো খবরা-খবর জানতে চাইলে একটি কমন কথা “মন খারাপ, ডিপ্রেশনে আছি”।

আসলেই কি তাই??? ডিপ্রেশন মানেই কি শুধু মন খারাপ নাকি অন্যকিছু??? কেউ ডিপ্রশনে আছে কি-না তা জানার রয়েছে ৮টি লক্ষণ। দেখে নেয়া যাক লক্ষণগুলো কি আর কারা আসেলই ডিপ্রেশনে আছে

১. অনুভূতিগুলো বেশিরভাগ লুকিয়ে রাখা

সমস্যাগুলো অন্যকারো সাথে,প্রিয়জনের সাথে,এমনকি নিজের সাথেও কখন অলোচনা করতে চায় না,লুকিয়ে রাখে।

২. ভালো বা খারাপ- কোনোটাই না থাকা

তাদের মন আঁটকা পড়ে থাকে সাদা-কালোর মাঝে থাকা এক ধূসর এলাকায়। কেউ যখন জিজ্ঞেস করে “কেমন আছেন”উওর দিতে গিয়ে ভাবনায় পড়ে যায় ,আসলেই কি তারা ভালো আছে নাকি খারাপ।

৩. ইচ্ছে করেই প্রচন্ড ব্যস্ত একটি জীবন বেছে নেয়া

অনুভূতি গুলোকে দমিয়ে রাখে নিজের কর্মব্যস্ততার মাধ্যমে। যাতে করে নিজের জন্যও সামান্য সময় না মেলে, এতে করে অনুভূতি গুলো অতল গহ্বরে আরে চাপা পড়ে।

৪. অল্পতেই রেগে যাওয়া

অল্পতেই,হয়তো অকারণেই রেগে যায় তারা। আশেপাশের কারো আনন্দপ্রকাশেও বিরক্ত লাগে তাদের। সকল আবেগের বহিঃপ্রকাশ তখন রাগে রূপান্তর হয়। নিজের উপরও রাগ হয়, এলোমেলো কারণ দর্শায়,নিজেই বুঝতে পারে না এই রাগের উৎস কি? উওর-ডিপ্রেশন

৫. অহেতুক ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ করা

“যা ঘটে ঘটুক” এমন মনোভাব নিয়ে তারা বিভিন্ন ঝুঁকিপূর্ণ আচরণ (পথ চলতে অন্যমনস্কতা, ধূমপান করা, নিজেকে বা অন্যকে আঘাত করা ইত্যাদি) করে। এতে সামাজিক অবনতি হয়, নিঃসঙ্গতা পেয়ে বসে,জীবনের অনেক ক্ষতি করে ফেলে।

৬. চিন্তা-ভাবনায় অস্পষ্টতা

ভাবনায় খেই হারিয়ে ফেলা, অবিন্যস্ত কথোপকথন, কথায় যুক্তি কিংবা আবেগ দুটোরই প্রবল অভাব, কথা বলা কমে যাওয়া ইত্যাদি ডিপ্রেশনের লক্ষণ।

৭. নিজের পছন্দের কাজগুলো আর না করা

নিজের সৃজনশীলতার সাথে সম্পর্কিত কোনো কাজ, যেমন ছবি আঁকা, ছবি তোলা, গান গাওয়া, লেখালেখি, নাচ করা ইত্যাদি সব ধীরে ধীরে কমিয়ে দেয়া এবং একসময় আর না করা ডিপ্রেশনের একটি মারাত্মক লক্ষণ।

৮. অন্তর্মুখী ও এককেন্দ্রিক হয়ে পড়া

পরিবার, বন্ধু-বান্ধব, প্রেমিক-প্রেমিকা সহ সব ধরনের ব্যক্তিগত ও সামাজিক সম্পর্কে অবহেলা, কারো মতামতকে প্রাধান্য না দেয়া, অন্যের ভালোলাগা, মন্দলাগা বা কোনো অনুভূতি তার কাছে তেমন কোনো দাম পায় না, ইত্যাদি লক্ষণ দেখা যায়। একাকীত্ব গ্রাস করে ,ডিপ্রেশন আর বাড়তে থাকে । এক পর্যায়ে ডিপ্রেশন গিলে খায় ব্যক্তিটিকে এবং তার জগতটাও ক্রমশ ছোট হয়ে আসে।

নিজেকে নিজে সময় দিন, আশেপাশের মানুষদের সাথে,প্রিয়জনের সাথে কথা বলুন। অনুভূতিগুলো প্রকাশ করুন। সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রার্থনা করুন। ডিপ্রেশনে কবলে পড়ে আপনার কোনো আত্নঘাতী সিদ্ধান্ত কারো জন্যই কাম্য নয় ।

নিজস্ব প্রতিবেদক
আরিফুল ইসলাম

আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন::
লাইক দিন: https://www.facebook.com/eisomoy365/ (‘এই সময়’ ফেসবুক পেইজ)
সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে: https://youtu.be/ZBMTaqUNbh4

Facebook Comments

Related Articles

Close