শাহেদকে যারা দলে আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়েছে তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে হবেঃ নানক

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক মনে করেন, ‘রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক মোহাম্মদ শাহেদকে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জড়িয়ে যে কথা হচ্ছে তা রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের জন্য খুবই দুঃখজনক এবং দুর্ভাগ্যজনক। এই শাহেদদেরকে যারা আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে তাদের চিহ্নিত করা উচিত এবং অতি দ্রুত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।’

একটি গণমাধ্যমের সাথে আলাপচারিতায় জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘শাহেদরা কিভাবে দলের ভিতর কোন দরজা দিয়ে ঢোকে? সেই দরজা অবশ্যই বন্ধ করে দিতে হবে। আজকেও আমরা পার্টি কার্যালয়ে কিছু নেতৃবৃন্দ বসেছিলাম। আমরা এ নিয়ে কথা বলেছি। এ নিয়ে আমাদের অবস্থান কঠোর। সফল রাষ্ট্রনায়ক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ যখন জীবন-জীবিকার সংগ্রামে, তখন এই সমস্ত ব্যক্তিদের দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করা এবং নিজেদের স্বার্থ উদ্ধার ছাড়া আর কোন লক্ষ্য নেই। তাই এদের বিরুদ্ধে অতি দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে এবং এদের যারা আশ্রয় প্রশ্রয় দিয়েছে তাদের চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নিতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২ বছর আগে দলের অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করতে হবে এবং তাদেরকে বের করতে হবে এমন নির্দেশনা দিলেও তা সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়িত হয়নি। এটা আওয়ামী লীগের ব্যর্থতা কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘বারবার নেত্রী এ কথা বলেছেন এটা সত্য। অনুপ্রবেশ বন্ধ করার জন্য দলকে বারবার তিনি দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। তারপরও তার নির্দেশনা যেহেতু বাস্তবায়ন হয়নি বা প্রতিফলন হয়নি বা কার্যকর হয়নি, সেই দায় আমরা কোনভাবেই এড়াতে পারি না।’ গত ১১ বছরে হাইব্রিড বা যাদেরকে অনুপ্রবেশকারী বলা হয় তারাই বিভিন্ন দুর্নীতি করছে, যারা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হয়েছে সেই তালিকাতেও অনুপ্রবেশকারীরা ত্রাণের টাকা চুরি করছে, সাহেদের মতো ঘটনা ঘটছে-এটা পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ বলে যেমন তিনি মনে করেন, ‘তেমনি দলের সিনিয়র এই নেতার ভাষ্য,‘ সবকিছুর ভিতরে আমি ষড়যন্ত্র দেখি না। এখানে আমাদের দুর্বলতা রয়েছে এ কথা অস্বীকার করলে চলবে না। হ্যা এটাও ঠিক পরিকল্পিতভাবে দলে ঢুকে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। কিন্তু এ ব্যাপারে যে সতর্কতা অবলম্বন করার কথা ছিলো মাননীয় নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য। তার কার্যকর ভূমিকা পালনে আমরা অবশ্যই ব্যর্থ হয়েছি।’

জাহাঙ্গীর কবির নানক আওয়ামী লীগের রাজনীতির প্রতিটি সিড়ি দক্ষতা ও সুনামের সঙ্গে উঠেছেন। ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন, যুবলীগের নেতা ছিলেন, বর্তমানে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য। আওয়ামী লীগে প্রবেশের জন্য একজন মানুষের কি যোগ্যতা দেখা হয়, কেউ আসলেই তাকে নিয়ে নেওয়া হয়? তিনি বলেন, ‘আমরা যারা পুরনো মানুষ আছি, বলতে কোন দ্বিধা নেই আমরা বুক চাপরাচ্ছি। এরা কিভাবে ঢুকে পরে এই ফটকটাই আমরা বুঝতে পারছি না। সে কারণে বারবার বলছি এই ফটকটাই বন্ধ করতে হবে। যে ফটক দিয়ে ঢোকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।’

আওয়ামী লীগের অনেক গুরুত্বপূর্ণ নেতার সঙ্গে রিজেন্ট হাসপাতালের শাহেদের ছবি আছে। দীর্ঘদিন ধরে নিজেকে আওয়ামী লীগার হিসেবে পরিচয় দিয়ে টেলিভিশন টক শোতে উপস্থিত হলেও এতদিন কেন নজরে আসেনি – এ প্রশ্নের উত্তরে নানক জানান, আওয়ামী লীগ একটি বিশাল সংগঠন। দেশের সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক সংগঠন। এই সংগঠনের কোথায় গিয়ে বা কোন অংশে শাহেদ আশ্রয় নিয়েছে বা প্রশ্রয় পেয়েছে, সে সম্পর্কে আমরা অবগত ছিলাম না। আমি এটা জেনে হতবাক হয়েছি যে, হাওয়া ভবনের সঙ্গে সম্পৃক্ততা থাকার কারণে যে শাহেদ ২ বছর জেল খেটেছে, সেই শাহেদ কিভাবে আওয়ামী লীগে আশ্রয় নিলো, প্রশ্রয় পেলো! এই হসপিতালটিকে সে একটা ঢাল হিসেবে ব্যবহার করেছে। ছবিগুলো দেখে আমি হতবাক হইনি। আমার পাশে একজন দাঁড়াতে পারে। কিন্তু এরা গেটপাস কিভাবে পায় সেটি হলো বিষয়।’

দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থাকার ফলে আওয়ামী লীগের আদর্শিক মান কমে গেছে- এমন কথার সঙ্গে একমত নন আওয়ামী লীগের এই প্রেসিডিয়াম কমিটির সদস্য। তিনি বলেন, আমাদের আদর্শ স্থিরই রয়েছে। আওয়ামী লীগের আদর্শিক লক্ষ্য বাস্তবায়নে নেত্রী যে গতিতে চলছেন, যে নির্দেশনা দিচ্ছেন সেগুলো বাস্তবায়ন করা যাচ্ছেনা বলেই সাহেদের মতো এই অনুপ্রবেশকারীরা দলে প্রবেশ করে শুধু দলের ভাবমূর্তিই নষ্ট করছে না, দলের আদর্শকেও প্রশ্নবিদ্ধ করছে। কাজেই দলের আদর্শ যখন প্রশ্নবিদ্ধ হয় তখন আমাদের মতো কর্মী যারা আন্দোলন সংগ্রাম করেছি, কঠিন দু:সময় পাড় করেছি তাদের মনোকষ্ট পাওয়া ছাড়া আর কোন গতি নেই।’

শুধুমাত্র আওয়ামী লীগে নয়, প্রশাসনেও স্বাধীনতা বিরোধী, রাজাকার পুত্র বা আত্মীয়দের পদোন্নতি পাওয়া এবং গুরুত্বপূর্ণ পদ দখল করে রাখাকে আওয়ামী লীগের জন্য এক অশনি সংকেত হিসেবে মনে করেন জাহাঙ্গীর কবির নানক। তিনি বলেন যে, এরা সুদূরপ্রসারী একটি পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে। এ ব্যাপারে আমি কঠিনভাবে বলতে পারি, সংশ্লিষ্ট সকলকে সতর্ক থাকা উচিত। আমরা এই বিষয়গুলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে খুব স্পষ্টই বলবো।

সূত্রঃ হাজারিকা প্রতিদিন

Facebook Comments

Related Articles