দেশে কোয়ালিটি বিশ্ববিদ্যালয় ও ইনস্টিটিউট একটিও নেইঃ বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, ‘আমরা অনেক ইনস্টিটিউট করি, দেশে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। কিন্তু কোয়ালিটি বিশ্ববিদ্যালয় ও ইনস্টিটিউট একটিও নেই। বাংলাদেশ পাওয়ার ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটের (বিপিএমআই) দ্বিতীয় বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, কার্যকর কোর্স যদি করতে না পারি, তাহলে বিপিএমআই’র প্রয়োজন নেই। কোর্সের মডেল হতে হবে আধুনিক এবং বিশ্বমানের। সর্বোচ্চ সেবা নিশ্চিত করতে অনলাইনে গেলে অনেক সমস্যা কমে যাবে। আমার নিজেরও অভিজ্ঞতা রয়েছে। সরকার মানে ভালো সর্ভিস না, প্রাইভেট মানে ভালো সার্ভিস- এই বক্সের মধ্যে ঢুকলে চলবে না।

তিনি বলেন, আমরা যখনই চাকরিতে ঢুকি এই বক্সের মধ্যে ঢুকে যাই। ইঞ্জিনিয়ারদের বলতে চাই, ডেসকো সার্ভিস ওরিয়েন্টেড। সেবাটা সবচেয়ে বড় জিনিস। ট্রেনিংয়ের মধ্যে সবেচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিতে হবে সেবাকে। ভুল হবে আবার উঠে দাঁড়াবেন। ভুল না করলে কিন্তু শিখতে পারবেন না।’ এসময় সামনের বাংলাদেশ একটি চমৎকার বাংলাদেশের দিকে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘স্মার্ট মিটার স্থাপনের কাজ দেরি করছেন, অনেক আগে শুরু করেছি- কিন্তু এখনও ৫০ শতাংশ কভার করতে পারিনি। স্মার্ট মিটার থাকলে বিল নিয়ে এই সমস্যা হতো না। এক সময় ডিস্ট্রিবিউশনে আর বিলের কাগজ আসবে না। অফিস ম্যানেজমেন্ট ভবিষ্যতে অনলাইন হয়ে যাবে। আপনারা ধীরে যাচ্ছেন, বিরক্ত হচ্ছেন। কাজ কিন্তু থেমে থাকবে না।’

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মূখ্যসচিব ড. আহমেদ কায়কাউস বলেন, ‘এক সময় আমরা গাদাগাদি করে সভা করতাম, বক্তব্য শুনে হাততালি দিতাম। টেকনোলজির মাধ্যমে যে পরিবর্তন এসেছে। আজকে যারা ডেসকোতে যাত্রা শুরু করছেন, তাদের পুর্বসূরিরা ভালো একটি স্ট্রাকচার করে রেখেছেন। এটি আপনারা ধরে রাখবেন নাকি নষ্ট করবেন? নিশ্চয় আরও ভালো করবেন বলে আশা করি।’

বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমেদ বলেন, ‘ট্রেনিংটাকে সিরিয়াস নিলে অনেক কিছু বুঝতে পারবে। একাডেমিক শিক্ষা ও ট্রেনিংয়ের মধ্যে বিশাল ফারাক রয়েছে। ট্রেনিংয়ে যা শিখছ সেটি তোমাকে প্রয়োগ করতে হবে। কোনো প্রশ্ন থাকলে ক্লাসে জেনে নেওয়ার চেষ্টা করবে। এখানে তোমাকে বিজনেস ল্যাঙ্গুয়েজ শিখতে হবে। সর্বোত্তম সেবা প্রদান করা তোমাদের নৈতিক দায়িত্ব।’

এসময় বিপিএমআই’র প্রকল্প পরিচালক ও রেক্টর মাহবুব-উল আলম, বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ডেসকো বোর্ডের চেয়ারম্যান মাকছুদা খাতুন, ডেসকোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাওসার আমির আলী, বিপিএমআই’র এমডিএস গোলাম রব্বানি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এতে বিভিন্ন কোম্পানি ও দপ্তর পরিদপ্তরের কর্মকর্তারা অংশ নেন। ৫০দিনব্যাপী বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশ নিচ্ছেন ঢাকা ইলেক্ট্রিসিটি সাপ্লাই কোম্পানির (ডেসকো) ৫৭ জন প্রকৌশলী।

Facebook Comments

Related Articles