প্রতারকের প্রতারণা কেউ আগে বুঝতে পারলে তবে কেউ প্রতারিত হয় নাঃ স্বাস্থ্যমন্ত্রী

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেছেন, ‘করোনা মোকাবেলা একক কোনো মন্ত্রণালয় বা প্রতিষ্ঠানের কাজ নয়। এতে আরো অনেক মন্ত্রণালয়ের পারস্পরিক সহযোগিতার দরকার হয়। কিন্তু আমরা প্রত্যাশিত হারে সেই সহযোগিতা পাচ্ছি না। অথচ কোনো সমস্যা দেখা দিলেই সব দায় আমার বা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওপরে এসে পড়ে।’

‘স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও মহাপরিচালক আবার তোপের মুখে’ শিরোনামে একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার রিপোর্টের সময় তার কাছে জানতে চাইলে তিনি এ মন্তব্য করেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘রিজেন্ট হাসপাতাল বা মোহাম্মদ সাহেদের প্রতারণার দায়ও আমাদের ওপর চাপানোর চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু আমি তো ওই লোককে চিনিই না। সে তখন ভালো ভালো কথা বলে আমাদের সঙ্গেও তো প্রতারণা করেছে। আমরা তখন যেহেতু কোনো বেসরকারি হাসপাতালকে পাচ্ছিলাম না চিকিৎসার জন্য, তখন এই হাসপাতালটি পেয়ে তাদের অনুমতি দিয়েছি। ওই ব্যক্তি আমাদের সঙ্গে প্রতারণার আগেই সমাজের আরো অনেক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে প্রতারণা করেছে, তা এখন বের হচ্ছে। প্রতারকের প্রতারণা কেউ আগে বুঝতে পারলে তবে কেউ প্রতারিত হয় না। যখন তার প্রতারণা ধরা পড়েছে তখন তো আমাদের পক্ষ থেকেই প্রশাসনের সহায়তায় ব্যবস্থা নিতে হয়েছে।’

বহুল আলোচিত রিজেন্ট হাসপাতাল ও জোবেদা খাতুন হেলথ কেয়ারের (জেকেজি) প্রতারণা উদঘাটনের প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ভূমিকার সমালোচনা ঘরে বাইরে দুই জায়গাতেই হচ্ছে। সমালোচনা করোনা শুরু হওয়ার আগে থেকে চললেও এখন নতুন মাত্রা পেয়েছে।

সূত্রঃ কালের কন্ঠ

Facebook Comments

Related Articles