কম পরীক্ষা, ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণ

চট্টগ্রামে কমেছে করোনা পরীক্ষার হার, এর পিছনে বিভিন্ন কারনকে দায়ী করা হচ্ছে, নমুনা পরীক্ষার ফি নির্ধারণ, উপসর্গ দেখে চিকিৎসা নেওয়া সহ বিভিন্ন কারণ রয়েছে, সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় ৩৮০ টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮৫ জনের কোভিড-১৯ পজিটিভ পাওয়া যায়, এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১২ হাজার ৭৫৪,একমাসে রোগী বেড়েছে প্রায় সাত হাজার,শেষ ২৪ ঘন্টায় ২জন রোগী মারা যান, এ নিয়ে মৃত্যু সংখ্যা ২২৩।

একদিনে এত কম সংখ্যক নমুনা পরীক্ষা গত ২ মাসে দেখা যায় নি। এর আগে গত ২৪ মে ২৬৪ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল। এব্যাপারে সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বির মতামত জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন,পরীক্ষা একদিন কম,একদিন বেশি এভাবেই হচ্ছে,শুক্রবার উপজেলায় নমুনা সংগ্রহ করা হয় না। এছাড়া ফি নির্ধারনের পর থেকে নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা কমেছে। সংক্রমণ ও কমে আসছে বলে তার ধারণা।

তবে ফৌজদারহাট বিআইটিআইডির ল্যাবের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক শাকিল আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, “এখন আমাদের কোন জট নেই। দুই দিনে রিপোর্ট দিচ্ছি। ফি নির্ধারণ নমুনা কমার বড় একটি কারণ। এখন আতঙ্ক ভাবটা নেই। আর মৃদু উপসর্গ আছে এমন লোকজন এখন পরীক্ষায় যাচ্ছেন না। কোভিডের চিকিৎসা নিয়ে যাচ্ছেন। তবে সংক্রমণ এখনো ঊর্ধ্বমুখী। পরীক্ষা কম হচ্ছে বলে তা বোঝা যাচ্ছে না।”

শুরুতে চট্টগ্রামে মাত্র ১টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা শুরু হলেও পরবর্তীতে যুক্ত হয় মোট ৬টি ল্যাব। দিনে ২ হাজারের বেশি নমুনা পরীক্ষার সক্ষমতা রয়েছে ল্যাবগুলোতে।

কম নমুনা পরীক্ষার কারনেই রোগী শনাক্ত হচ্ছে না বলে দাবি করেছে অনেক চিকিৎসক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের এক অধ্যাপক বলেন,রোগী শনাক্ত করে আইসোলেশন করা গেলে সংক্রমণ বাড়বে না। পরীক্ষা না করে সংক্রমণ কমছে ভাবার সুযোগ নেই।

তথ্যসূত্রঃ প্রথম আলো

Facebook Comments

Related Articles