পবিত্র কোরআন পোড়ানোর ভিডিও ভাইরাল, সহিংস বিক্ষোভ সুইডেনবাসীর

রবিবার,২০ আগস্ট,২০২০

সুইডেনের তৃতীয় বৃহত্তম শহর মালমোতে মুসলমানদের পবিত্র ধর্মগ্রন্থ কোরআন পুড়িয়ে দেয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে শত শত মানুষ। গত শুক্রবার দক্ষিণাঞ্চলীয় মালমো শহরের রোজেনগার্ড শহরতলীতে এক সাইকেল চালানোর রাস্তায় এই কোরআন শরীফ পোড়ানোর ঘটনাটি ঘটে।

বিবিসি সংবাদ মাধ্যম থেকে জানা যায়, সুইডেনের উগ্র ডানপন্থী ইসলাম বিদ্বেষীরা শুক্রবার সকালে পবিত্র কুরআনে আগুন ধরিয়ে দেয়। এর প্রতিবাদে সেখানকার ক্ষুব্ধ মুসলিম অভিবাসীরা রাস্তায় নেমে আসে এবং তীব্র বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে শুক্রবার রাতে গাড়িতে আগুন ও ইট পাথর ছোড়াছুঁড়ি শুরু করে তরুণরা। স্থানীয় মাধ্যমের সূত্রমতে, প্রায় ৩০০ লোক এই বিক্ষোভে শামিল হয়েছিল বলে তথ্য পাওয়া যায়।

কোরআন শরীফ অবমাননার এই ঘটনায় যুক্ত থাকতে চেয়েছিলেন ডেনমার্কের উগ্র ডানপন্থী নেতা রাসমোস পালাদুন। কিন্তু এর আগেই সুইডেন পুলিশের হাতে আটক হন তিনি। বার্তাসংস্থা এএফপি জানিয়েছে, সুইডেনে প্রবেশের উপর দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে পালাদুন কে।

পালাদুন ডেনমার্কের কট্টর ডানপন্থী স্ট্রাম কুর্স দলের নেতা। এর আগেও এমন বর্ণবাদ ও অবমাননাকর ঘটনার কারণে কারাবরণ করেন তিনি।

এদিকে মালমো তে স্থানীয় বাংলাদেশী সাংবাদিক তাসনিম খলিল জানান, গোপনে এ কোরআন পোড়ানোর ঘটনায় পালাদুনের অনুসারীরাই জড়িত। তারা নিজেরাই এই ভিডিও ধারণ করে ও তা মিডিয়ায় আপলোড করে দেয়। তবে এই ঘৃণ্য কাজের পক্ষে পালাদুনের অনুসারী দের যুক্তি ছিলো এই যে, শুধুমাত্র মতপ্রকাশের স্বাধীনতা বোঝাতেই নাকি তারা এই কাজে যুক্ত হয়। অথচ, সুইডেনের আইন অনুযায়ী অন্য ধর্মের প্রতি অবমাননা সম্পূর্ণ বেআইনী কাজ।

বিক্ষোভের এ ঘটনায় পুলিশের সাথে সংঘর্ষের জের ধরে ২০ জনকে আটক করা হয়। এছাড়াও অবমাননার ঘটনায় জড়িত থাকায় আরও তিন জনকে গ্রেফতার করে সুইডেন পুলিশ।

নিজস্ব প্রতিবেদক
নোশিন অয়ন

আমাদের সাথে যুক্ত থাকুন::
লাইক দিন: https://www.facebook.com/eisomoy365/ (‘এই সময়’ ফেসবুক পেইজ)
সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে: https://youtu.be/ZBMTaqUNbh4

Facebook Comments

Related Articles