আম্পায়ার হতে চাইলে…

সোমবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০

ক্রিকেটে আম্পায়ারিং করাটা চ্যালেঞ্জের,তবে আম্পায়ার হওয়াটাও একেবারে কম চ্যালেঞ্জের না!
আম্পায়ার হতে চাইলে প্রথমত,স্থানীয় ক্রিকেট এসোসিয়েশনে যোগাযোগ করতে হয়-বয়স ফ্যাক্টর না।প্রতি মৌসুমেই একটা করে নতুন আম্পায়ার নিয়োগ পরীক্ষা হয়।
এই পরীক্ষাটায় অবশ্য প্রশ্নগুলো হয় মূলত ক্রিকেটের বেসিকের উপর ভিত্তি করে।এতে ক্রিকেটের মূল ৪২ টা রুলস জানতে হয়,নিজের সামর্থ্য এবং খেলাটার প্রতি আত্মনিবেদনের প্রমান রাখতে হয়।দৃষ্টিশক্তি এবং নিজস্ব পর্যবেক্ষন ক্ষমতা ভালো থাকা লাগে।আবেদনকারী স্থানীয় ক্রিকেটার হয়ে থাকলে এই ক্ষেত্রে একটু সুবিধা পাওয়া যায়।
এই পরীক্ষার জন্য কিছু গাইডও থাকে মার্কেটে,সেটা এসোসিয়েশনে খোঁজখবর নিয়ে বিস্তারিত জানা যায়।
অতঃপর সেই পরীক্ষায় টিকে গেলে উক্ত এসোসিয়েশন একটা লেভেল-১ আম্পায়ারিং কোর্স চালু করে ফ্রেশার্সদের নিয়ে।সেখানে বিভিন্ন রকম প্রশিক্ষনাদি প্রদান শেষে আবার পরীক্ষা হবে।যারা তাতে উত্তীর্ণ হবে,তারা যাবে নেক্সট লেভেল আম্পায়ারিং কোর্সে।এভাবে ৪ টা পর্যন্ত লেভেল আছে।প্রতি মৌসুমে পাশ করা লেভেল অনুযায়ী আম্পায়ারদের ভিন্ন ভিন্ন পর্যায়ে ম্যাচ পরিচালনার দায়িত্ব দেয় এসোসিয়েশন।
দীর্ঘদিন ম্যাচ পরিচালনার অভিজ্ঞতা হয়ে গেলে এবং সাফল্য দেখাতে পারলে একটা সময় উক্ত ক্রিকেট এসোসিয়েশন আইসিসির কাছে আবেদন করবে,ঐ আম্পায়ারকে আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনার অনুমতি দেয়ার জন্য।আইসিসি তখন আরেকটা পরীক্ষা নিবে তার।সে পরীক্ষায় ৯০% এর উপর মার্ক্স পেলে তবেই মিলবে আন্তর্জাতিক ম্যাচ পরিচালনার অনুমতি।অবশ্য প্রতি লেভেল পার হতেই ৯০% এর উপরে মার্ক্স পাওয়া লাগে।
আম্পায়ারিংয়ে আয়ের মাত্রা আকাশছোঁয়া না হলেও খারাপও না।নবাগত আম্পায়াররা প্রথম দিকে বছরপ্রতি ৩৫ হাজার ডলার আয় করতে পারে,তবে অভিজ্ঞতা হয়ে গেলে এবং এলিট প্যানেলে যেতে পারলে বছরপ্রতি ১ লক্ষ ডলার আয়ও করতে পারে একজন আম্পায়ার।আর বছরে আইসিসি আয়োজিত বা অনুমোদিত কোন টুর্নামেন্ট থাকলে আয়টা আরো বাড়ে।
এছাড়া যেকোন দেশে(এলিট প্যানেলভুক্তদের জন্য)এমিরেটসের এয়ার টিকিট ফ্রি,কারন তারা আইসিসির অফিশিয়াল স্পন্সর।প্রতি বছরের যেকোন একদিন নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী কোন একটা জায়গায় পরিবার নিয়ে ছুটিও কাটাতে পারেন এলিট প্যানেলভুক্ত আম্পায়াররা,খরচ দিবে আইসিসি।
২০১৮ আইপিএলে ম্যাচপ্রতি একজন আম্পায়ারকে ১ লাখ ৭৫ হাজার রুপি দিয়েছিলো বিসিসিআই।
নিজস্ব প্রতিবেদক/ দেওয়ান মাহতাব দিদার
আরও যুক্ত থাকুন আমাদের সাথে-
আমাদের ফেসবুক পেইজ: এই সময়

Facebook Comments

Related Articles