বাংলা সাহিত্যের আদি যুগঃ ১ম পর্ব

প্রশ্ন: বাংলা সাহিত্যের যুগবিভাগের পরিচয় দাও।

উঃ আদি যুগ / প্রাক তুর্কি আক্রমন যুগ
( ৬৫০-১২০০ খ্রীঃ)
মধ্যযুগঃ তুর্কি আক্রমণ থেকে ইউরোপ প্রভাবের পূর্ব পর্যন্ত। ( ১২০০-১৮০০ খ্রীঃ)
আধুনিক যুগঃ ( ১৮০০- বর্তমান)

প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন গ্রন্থের নাম কি?

উঃ চর্যাপদ

প্রশ্নঃ প্রাচীন বাংলার জনপদ ও অর্থনীতির পরিচয় কার গ্রন্থে প্রথম গুরুত্বসহকারে উল্লেখ করা হয়েছে?

উঃ নীহাররঞ্জন রায়ের ” বাংগালীর ইতিহাস ” গ্রন্থে।

প্রশ্নঃ প্রাকচৈতন্য যুগের সময়কাল কত?

উঃ ১২০৩-১৫০০

প্রশ্নঃ উত্তর চৈতন্যযুগের সময়কাল কত?
উঃ ১৫০০-১৬৬০

প্রশ্নঃ প্রাক চৈতন্যযুগের রচনাগুলোর নাম লিখ

উঃ কৃত্তিবাসী রামায়ণ, বডুচন্ডীদাশের শ্রীকৃষ্ণকীর্তন, মালাধর বসুর শ্রীকৃষ্ণবিজয়, বিদ্যাপতি ও চন্ডীদাশের বৈষ্ণব পদাবলি ও তিনটি আদি মনসামংগল কাব্য।

প্রশ্নঃ উত্তর চৈতন্যযুগের রচনাগুলোর নাম লিখ।

উঃ বৃন্দাবনদাশ, লোচন দাশ, জয়ানন্দ, এবং কৃষ্ণদাশ কবিরাজের চৈতন্য-জীবন- কাব্য, জ্ঞানদাশ ও গোবিন্দদাশের বৈষ্ণব পদাবলি, কাশিরাম দাশের মহাভারত, বহু সংখ্যক মনসা, চন্ডী ধর্ম ও অন্নদামংগল কাব্য, মুসলমান কবি দৌলতকাজী ও আলাওলের কাব্যসম্ভার এবং শাক্ত পদাবলি উল্লেখযোগ্য। ভারতচন্দ্রের মৃত্যুর পর ( ১৭৬০ খ্রি) থেকে ১৮০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত সময়কে যুগসন্ধিক্ষণ বলে।

প্রশ্নঃ কত সালে ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়?

উঃ ১৮০০ সালে

প্রশ্নঃ চর্যাপদের অন্য নামগুলো কি?

উঃ চর্যাচর্যবিনিশ্চয়, চর্যাগীতিকোষ, চর্যাগীতি।

প্রশ্নঃ চর্যাপদ কিসের সংকলন?
উঃ গানের

প্রশ্নঃ চর্যাপদের বিষয়বস্তু কি?
উঃ বৌদ্ধ ধর্ম মতে সাধনভজনের তত্ত্বপ্রকাশ।

প্রশ্নঃ চর্যায় কতজন কবির পদ পাওয়া গিয়েছে?
উঃ মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে, ২৩ জন। সুকুমার সেনের মতে ২৪ জন।

প্রশ্নঃ বুড্ডিস্ট মিস্টিক সংস ও বাঙালা সাহিত্যের ইতিহাস কে লিখেছেন?
উঃ যথাক্রমে মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ও সুকুমার সেন।

প্রশ্নঃ চর্যাপদে কতটি পদ বা গান ছিলো?
উঃ সুকুমার সেনের মতে ৫১ টি, মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর মতে ৫০টি।

প্রশ্নঃ চর্যাগীতি পদাবলী কে লিখেছেন?
উঃ সুকুমার সেন।

প্রশ্নঃ চর্যাপদের কোন কবি সর্বাপেক্ষা বেশি পদ রচনা করেন?
উঃ কাহ্নপা, ১৩ টি।

প্রশ্নঃ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ পদ কে রচনা করেন?
উঃ ভুসুকুপা, ৮ টি।

প্রশ্নঃ কোন কবির রচিত পদ পাওয়া যায়নি?
উঃ তন্ত্রীপা, পদ ২৫

প্রশ্নঃ চর্যাপদে কোন কোন পদ পাওয়া যায়নি?
উঃ ২৪,২৫,৪৮

প্রশ্নঃ চর্যাপদ গ্রন্থে মোট কতটি পদ পাওয়া গিয়েছে?
উঃ সাড়ে ছেচল্লিশটি।

প্রশ্নঃ চর্যায় কোন পদ খন্ডিত আকারে পাওয়া গিয়েছে?
উঃ ২৩

প্রশ্নঃ চর্যার পদগুলো কোন ভাষায় রচিত?
উঃ সন্ধ্যা বা সান্ধ্য, এই ভাষার সুনির্দিষ্ট রূপ পায়নি। এ ভাষা আলো আধারের মত।

প্রশ্নঃ চর্যাপদের প্রথম পদটি কার লিখা?
উঃ লুইপা

প্রশ্নঃ চর্যাপদের আবিষ্কারক কে?
উঃ হরপ্রসাদ শাস্ত্রী

প্রশ্নঃ কোথা থেকে কত সালে চর্যা আবিষ্কৃত হয়?

উঃ নেপালের রয়েল লাইব্রেরি থেকে ১৯০৭ সালে।

প্রশ্নঃ চর্যাপদ কবে কোথা থেকে কার সম্পাদনায় প্রকাশিত হয়?
উঃ ১৯১৬ খ্রীষ্টাব্দে কলকাতার বংগীয় সাহিত্য পরিষদ থেকে, হরপ্রসাদ শাস্ত্রী।

প্রশ্নঃ চর্যাপদের রচনা কাল লিখ।
উঃ সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায়ের মতে ৯৫০ থেকে ১২০০ খ্রিষ্টাব্দের মধ্যে।

প্রশ্নঃ চর্যাপদের সবচেয়ে প্রাচীন কবি কে?
উঃ শবরপা

প্রশ্নঃ চর্যাপদ কোন ছন্দে রচিত?
উঃ মাত্রাবৃত্ত ছন্দ।

প্রশ্নঃ কার মতে কুক্কুরিপা মহিলা কবি ছিলেন?
উঃ ড.সুকুমার সেন।

প্রশ্নঃ ধর্মপার গুরু কে ছিলেন?
উঃ কাহ্নপা।

প্রশ্নঃ ঢেন্ডনপা পেশায় কি ছিলেন?
উঃ তাঁতি।

প্রশ্নঃ কার রচিত পদে দারিদ্র‍্যের চিরায়ত রূপ ফুটে উঠেছে?
উঃ ঢেন্ডনপা

প্রশ্নঃ ভুসুকুপা কোন অঞ্চলের মানুষ ছিলেন?
উঃ ড.মুহাম্মদ শহীদুল্লাহর বক্তব্য অনুযায়ী পূর্ববঙ্গের। তার মতে শবরপা বাংলাদেশের লোক ছিলেন।

প্রশ্নঃ কোন সময়কালকে অন্ধকার যুগ বলে?
উঃ ১২০১-১৩৫০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত।

প্রশ্নঃ অন্ধকার যুগে কারা এইদেশে নির্যাতন করতো?
উঃ মগ দস্যু, তুর্কিরা।

প্রশ্নঃ বাঙালা ভাষার ইতিবৃত্ত বইটি কার লিখা?
উঃ মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্

প্রশ্নঃ বাঙলা ভাষা কার সম্পাদিত গ্রন্থ?
উঃ হুমায়ূন আজাদ।

প্রশ্নঃ বাঙালা সাহিত্যের ইতিহাস কার লিখা গ্রন্থ?
উঃ সুকুমার সেন।

প্রশ্নঃ লাল নীল দীপাবলী কার লিখা বই?
উঃ হুমায়ূন আজাদ।

প্রশ্নঃ অন্ধকার যুগের রচনাগুলোর নাম লিখুন।
উঃ শূণ্যপুরাণ, সেক শুভোদয়া, নিরঞ্জনের উষ্মা৷

প্রশ্নঃ শূন্যপুরাণ কে লিখেছেন?
উঃ রামাই পন্ডিত

প্রশ্নঃ চম্পুকাব্য কাকে বলে?
উঃ গদ্য ও পদ্য মিশ্রিত কাব্যকে চম্পুকাব্য বলে।

প্রশ্নঃ সেক শুভোদয়া কে লিখেছেন?
উঃ হলায়ুধ মিত্র।

প্রশ্নঃ নিরঞ্জনের উষ্মা কে লিখেছেন?
উঃ সহদেব চক্রবর্তী।

Facebook Comments

Related Articles