চাকুরীপ্রার্থীদের অনুরোধে মন গলে আবারও জমাট বেধেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির (বিএসসি) তত্ত্বাবধানে ৫টি ব্যাংকের অফিসার (ক্যাশ) এর ১ হাজার ৫১১ টি শূন্য পদে এমসিকিউ টেস্ট এবং লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য প্রার্থীদের প্রবেশপত্র বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েবসাইটে আপলোড করা হয়েছিল। পরে চাকুরীপ্রার্থীদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে আবারো ট্রাকিং পেজ সংগ্রহ ও প্রবেশপত্র তোলার সুযোগ দিয়েছিল ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি।সমন্বিতভাবে ৭ টি ব্যাংক/আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নিয়োগের ক্ষেত্রেও পুনরায় সুযোগ দিয়েছিলো কমিটি। তবে সমসাময়িক সার্কুলারের ৯ ব্যাংকের অফিসার পদে পুনরায় সুযোগ দিচ্ছেন না তারা৷

জানা যায়, ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি একটি নতুন পদ্ধতিতে পরপর তিনটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। আগে আবেদনের সময় পরীক্ষার ফি নিতেন না বাংলাদেশ ব্যাংকের অধীনে কাজ করা ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি। নতুন নিয়মে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আবেদন করে মোবাইল ব্যাংকিং একাউন্ট ‘রকেট’ এর মাধ্যমে দুইশত টাকা দিতে হয়। টাকা জমা দেওয়ার পর Bill no ও TxnID সম্বলিত একটি মেসেজ আসে মোবাইলে। এরপর ওয়েবসাইটে গিয়ে সেই তথ্য দিয়ে পেমেন্ট ভ্যারিফিকেশন করতে হয়। সচারাচর সরকারি বেসরকারি নিয়োগের ক্ষেত্রে দেখা যায় টাকা জমা দেওয়ার পর মেসেজ আসলেই আবেদন সম্পূর্ণ হয়। পরীক্ষার্থীদের অনেকেই প্রকাশিত বিজ্ঞপ্তি না পড়ে বা পড়েও অভ্যাসবশত পেমেন্ট ভ্যারিফিকেশন করেননি৷ এতে যখন প্রবেশপত্র দেওয়া হয় তখন তারা প্রবেশপত্র তুলতে পারেন নি। অনেকে কম্পিউটারের কাজ করা দোকানীদের মাধ্যমে আবেদন করেছিলেন, তারাও একই বিপদে পড়েছেন। আর ভুল বুঝতে পারার আগেই তারা পরপর তিনটি আবেদনের ক্ষেত্রে ভুল করে ফেলেছেন৷

চাকুরীপ্রার্থীরা ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে নিজেদের ভুল বুঝে আরেকবার আবেদনের সুযোগ চায়। অনেকে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সাথে সাক্ষাৎ করে আরেকবার পেমেন্ট ভ্যারিফিকেশন করতে সুযোগ চান। তখন তিনটি আবেদনেই আরেকবার করে সুযোগ দেওয়া হবে এরকম একটি সিদ্ধান্ত হয়৷ তবে সেই সিদ্ধান্ত সমন্বিত ৫ ব্যাংক ও ৭ ব্যাংকের নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রয়োগ হলেও সবচেয়ে বড় নিয়োগ, সমন্বিত ৯ ব্যাংকের নিয়োগের ক্ষেত্রে এখনো কার্যকর না হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন অনেক চাকুরীপ্রার্থী৷

চাকুরীপ্রার্থীরা মনে করেছিলেন সমসাময়িক দুইটি সার্কুলারের মত এখানেও আরেকবার সুযোগ দেওয়া হবে। তবে তারা বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভিন্ন পর্যায়ে যোগাযোগ করলে তাদের জানানো হয় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের অনীহায় আর সুযোগ দেওয়া যাচ্ছেনা। গভর্নরের কাছে এ সংক্রান্ত ফাইল পাঠানো হয়েছিলো।

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির তত্ত্বাবধানে ৯টি ব্যাংকে ‘অফিসার (জেনারেল)’ পদে অফিসার পরে দুই হাজারেরও অধিক পদে নিয়োগ দেওয়া হবে। ৯টি ব্যাংক হলো সোনালী ব্যাংক লিমিটেড, জনতা ব্যাংক লিমিটেড, রূপালী ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক, রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বাংলাদেশ হাউস বিল্ডিং ফাইন্যান্স করপোরেশন, ইনভেস্টমেন্ট করপোরেশন অব বাংলাদেশ ও কর্মসংস্থান ব্যাংক।

Facebook Comments

Related Articles