বিএমডিএসের স্টুডেন্ট উয়িংসের ফ্রী টেলিমেডিসিন সেবা

বৃহস্পতিবার, ১৩ মে, ২০২১

“মানুষ মানুষের জন্য; জীবন জীবনের জন্য”-ভুপেন হাজারিকার এই উক্তিটিকেই মনে প্রানে ধারন করে প্রাচীন বাংলার রাজধানী বিক্রম্পুর তথা বর্তমানের মুন্সিগঞ্জের স্থানীয় চিকিৎসক এবং মেডিকেল শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত সংগঠন “বিক্রমপুর-মুন্সিগঞ্জ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল সোসাইটির (বিএমডিএস)” অঙ্গ সংগঠন
“বিএমডিএস স্টুডেন্টস উইং” এর উদ্যোগে
আয়োজন করা হয়েছে “ফ্রি টেলিমেডিসিন সেবা”। মুন্সিগঞ্জ জেলার কৃতি এই সন্তানেরা মুন্সিগঞ্জের জনসাধারণের কথা ভেবে করোনাকালিন সময়ের শুরু থেকেই বিনামূল্যে নানারকম সেবা দিয়ে আসছে। তারা মনে করে মুন্সিগঞ্জের সন্তান হিসাবে এমন সেবামূলক কাজ তাদের কর্তব্য। করোনাকালিন এই সময়ে সবাই স্বাস্থ্যের বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে আছে। এছাড়া নানারকম গুজব তাদেরকে আরো আতংকিত করে তুলেছে। তারই প্রেক্ষিতে তাদের কাছে সঠিক তথ্য এবং সেবা পৌছে দিতে স্থানীয় চিকিৎসক এবং মেডিকেল শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত সংগঠন “বিক্রমপুর-মুন্সিগঞ্জ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল সোসাইটির (বিএমডিএস)” অঙ্গ সংগঠন
“বিএমডিএস স্টুডেন্টস উইং” এর উদ্যোগে
আয়োজন করা হয়েছে “ফ্রি টেলিমেডিসিন সেবার”। এই বিষয়ে জনসাধারণের উদ্দ্যেশে বিএমডিএস এর কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ডা. রাশেদ আহমেদ বলেন, “মুন্সীগঞ্জ নিয়ে আমাদের অনেক পরিকল্পনা রয়েছে এর মধ্যে টেলিমেডিসিন সেবা একটি। করোনার কারণে আমরা মাঠ পর্যায়ে কাজ করতে পারছি না তবে আমরা থেমেও নেই। কোভিড সম্পর্কে জনসাধারণকে সচেতন করার লক্ষ্যে সরাসরি টেলিফোনে সেবা দিচ্ছি। এর মধ্যেই আমরা জেলা পর্যায়ের হাসপাতালের চিকিৎসকদের সুরক্ষা সামগ্রী দিয়েছি এছাড়াও আমরা বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে যেয়ে হেলথ্ ক্যাম্প করার পরিকল্পনা করেছি।”

বিএমডিএস কেন্দ্রীয় কমিটির আরেক সহ-সভাপতি ডা. এস এম রাশেদুল হাসান বলেন, “মুন্সীগঞ্জের মানুষদের স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে বিএমডিএস সবসময়ই সদা তৎপর। মানুষের চিকিৎসা ভোগান্তি কমাতে আমরা এর আগেও টেলিমেডিসিন সেবা প্রদান করেছি। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এখনো চলমান এমতাবস্থায় সাধারণ মানুষদের মধ্যে এখনো করোনা নিয়ে দেখা যাচ্ছে চিকিৎসা ভীতি। জনসাধারণকে সঠিক সময়ে সঠিক পরামর্শ দিতে এবং করোনা ভীতি কমিয়ে সচেতন করাই আমাদের উদ্দেশ্য”।

বিএমডিএস এর কেন্দ্রীয় কমিটির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক ও টেলিমেডিসিন সেবার প্রধান সমন্বয়ক আবদুল মোমেন খান বলেন, “মুন্সীগন্জের স্বাস্থ্যব্যবস্থা উন্নয়নে বিএমডিএস সবর্দা পাশে থাকবে।জনগণের সাড়া পেলে,এই সেবার পরিব্যপ্তি আরও বাড়ানো হবে “।

কোভিড-১৯ মোকাবেলায় সম্মুখসারির যোদ্ধা হিসেবে চিকিৎসকেরা কাজ করে যাচ্ছেন করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই। করোনার শুরু থেকেই বিভিন্নভাবে কাজ করে যাচ্ছে বিএমডিএস। ইতোমধ্যে বিএমডিএস এর ডাক্তারগণের পরিচালনায় মুন্সীগঞ্জে করোনা স্যাম্পল কালেকশন বুথ স্থাপন, চিকিৎসকদের মাঝে সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন এবং প্রায় ২৫ জন চিকিৎসকের সমন্বয়ে গড়া একটি টিমের মাধ্যমে টেলিমেডিসিন সেবা প্রদান করা হচ্ছে, যেখানে এ যাবৎ প্রায় ৫০০ জনেরও বেশি মানুষ চিকিৎসা সেবা নিয়ে উপকৃত হয়েছে।

লিও তলস্তয় বলেছিলেন,” জীবনের আসল অর্থই হচ্ছে মানবসেবা” তাদের এই কার্যক্রম যেন লিও তলস্তয়ের এই উক্তিকেই ফুটিয়ে তুলে। এইভাবেই বিএমডিএস হয়ে উঠুক মুন্সিগঞ্জবাসীর মানবতার প্রতীক।

নিজস্ব প্রতিবেদক
সিজান শেখ

Facebook Comments

Related Articles